• E-paper
  • English Version
  • শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন

নৌকার প্রচারে উপাচার্য ও সরকারি কর্মকর্তারা

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৩ জুলাই, ২০১৮
  • ২১৬ বার পঠিত

সিলেট শহরের আম্বরখানা এলাকার একটি রেস্তোরাঁয় প্রবেশ করলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকাবাহী গাড়ি থেকে তাঁর সঙ্গে নামলেন তাঁর দপ্তরের কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারীও। সেখানে এক নির্বাচনী সভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের পক্ষে ভোট চাইতে সবাইকে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে বক্তব্য দেন তিনি।

উপাচার্য একা নন, সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ, সিভিল সার্জন, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এবং সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ও উপরেজিস্ট্রার, শাবিপ্রবির হিসাব পরিচালক, প্রধান প্রকৌশলীসহ অর্ধশতাধিক সরকারি কর্মকর্তা কামরানের পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন।

নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তাঁরা সিটি করপোরেশন নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘনের পাশাপাশি চাকরিবিধিও ভঙ্গ করেছেন।

সিটি করপোরেশন নির্বাচন আচরণবিধির ২২ ধারার ১ নম্বর উপধারায় লেখা আছে, ‘সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এবং কোনো সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী নির্বাচন-পূর্ব সময়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রচারণায় বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করিতে পারিবেন না।’ ২২ ধারার ২ উপধারায় লেখা আছে, ‘নির্বাচন-পূর্ব সময়ে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তাহার পক্ষে কোনো ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান নির্বাচনী কাজে সরকারি প্রচারযন্ত্র, সরকারি যানবাহন, অন্য কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা ভোগ এবং সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীগণকে ব্যবহার করিতে পারিবেন না।’

শনিবার রাতের ওই নির্বাচনী সভায় শাবিপ্রবির কেমিকৌশল ও পলিমার বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এবং সিন্ডিকেট সদস্য মো. মস্তাবুর রহমান, জাতিসংঘে স্থায়ী মিশনে বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত এ কে আবদুল মোমেন, শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মাসুম বিল্লাহসহ আরও অনেকে বক্তব্য দেন।

সভায় ব্যানারে লেখা ছিল, ‘জনাব বদরউদ্দিন আহমদ কামরান-এর সমর্থনে নৌকা মার্কার সমর্থনে নির্বাচনী সভা’। বক্তৃতায় উপাচার্য বলেন, ‘নির্বাচনে কেন্দ্রীয়ভাবে সমন্বয়টা জরুরি। সরকার আছে বলে আত্মতুষ্টির কোনো সুযোগ নেই। নৌকাকে বিজয়ী করতে কাজ করতে হবে। এখানে আমাদের সরকার ও আমাদের পক্ষে সমস্ত শক্তি থাকার পরেও যদি আমরা হেরে যাই, তবে তা লজ্জার হবে।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইনের একটি ধারায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের রাজনৈতিক মতামত প্রচার ও রাজনৈতিক সংগঠনে জড়িত হতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ‘চাকরির শর্তাবলী’ শিরোনামে ৫১ ধারার ২ উপধারায় লেখা আছে, ‘কোনো শিক্ষক বা কর্মকর্তার রাজনৈতিক মতামত পোষণের অধিকার ক্ষুণ্ন না করিয়া তাহার চাকরির বিধানাবলী নির্ধারিত হইবে; তবে শর্ত থাকে যে, তিনি তাহার উক্ত মতামত প্রচার করিতে পারিবেন না বা নিজেকে কোনো রাজনৈতিক দলের সহিত জড়িত করিতে পারিবেন না।’

২৮ জুন বদরউদ্দিন কামরানের মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন ওসমানী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ মুর্শেদ আহমদ চৌধুরী। তখন আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠলে অধ্যক্ষ প্রথম আলোকে বলেছিলেন, ছেলের ভোটার আইডি কার্ড আনতে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়েছিলেন। তবে এবার তিনি প্রচারণায় অংশগ্রহণের ধরন পাল্টেছেন। স্বাস্থ্য খাতে সরকারের সাফল্য নিয়ে প্রচারণার আড়ালে নৌকার পক্ষে ভোট চাইছেন তিনিসহ বেশ কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা।

১৮ জুলাই সিলেটের সিভিল সার্জন হিমাংশু লাল রায়ের সভাপতিত্বে এক সভায় অধ্যক্ষ মুর্শেদ আহমদসহ বেশ কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী অংশ নেন। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে এ আলোচনা সভা হয়। তাঁরা স্বাস্থ্য বিভাগে সরকারের সাফল্য তুলে ধরার পাশাপাশি নৌকা মার্কার পক্ষে ভোট চান। পরে তাঁরা নৌকা মার্কায় কামরানকে ভোট দেওয়ার জন্য চৌহাট্টা ও ওসমানী মেডিকেল এলাকায় গণসংযোগ ও প্রচারপত্র বিলি করেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেত্রী নাজরা চৌধুরী, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালট্যান্ট আজিজুর রহমান, স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্য সহকারী কল্যাণ সমিতির কে

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..