• E-paper
  • English Version
  • সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:০৯ পূর্বাহ্ন

মৌলভীবাজারে পুলিশের গুলিতে সন্দেহভাজন দুই ডাকাত আহত

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৩ জুলাই, ২০১৮
  • ১৯০ বার পঠিত

মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার সোনারুপা চা-বাগানে ব্যবস্থাপকের বাংলোতে ডাকাতির প্রস্তুতির সময় ডাকাত দলের সঙ্গে পুলিশের গোলাগুলিতে দুই ব্যক্তি আহত হয়েছেন। পুলিশের ভাষ্য, গুলিবিদ্ধ দুজন ডাকাত দলের সদস্য। তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আজ শুক্রবার সকালে পার্শ্ববর্তী বড়লেখা থানায় মামলা হয়েছে।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন কমলগঞ্জ উপজেলার কালীপুর গ্রামের বাসিন্দা সুলেমান মিয়া (৩৫) ও বড়লেখার গজভাগ গ্রামের আসকর আলী (৪৬)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত পৌনে ১২টার দিকে ১০-১২ জনের একটি ডাকাত দল বড়লেখা উপজেলার সমনভাগ চা-বাগানের নির্জন স্থানে জড়ো হয়ে পার্শ্ববর্তী সোনারুপা বাগানের ব্যবস্থাপকের বাংলোতে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। খবর পেয়ে বড়লেখা থানা-পুলিশের একটি দল আগে থেকেই সেখানে ওত পেতে ছিল। একপর্যায়ে স্থানীয় চা-শ্রমিকদের সহযোগিতায় পুলিশ ডাকাতদের ধাওয়া করে। এ সময় ডাকাতেরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। পরে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সুলেমান ও আসকরকে গ্রেপ্তার করা হয়। সুলেমানের ডান পায়ে ও আসকরের বাঁ হাতে গুলি লেগেছে। তবে অন্য সহযোগীরা পালিয়ে যাওয়ায় তাদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে ডাকাতদের ব্যবহৃত একটি ধারালো ছোরা, দুটি দা, একটি লোহার পাইপ ও একটি দরজা ভাঙার যন্ত্র জব্দ করা হয়। আজ বড়লেখা থানার পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) অমিতাভ দাস তালুকদার বাদী হয়ে মামলা করেন। গ্রেপ্তার দুজনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী সহযোগী আটজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও চার-পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করা হয়। সকালে কুলাউড়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু ইউছুফ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান।

বড়লেখা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) দেবদুলাল ধর আজ বেলা তিনটার দিকে বলেন, পুলিশ আত্মরক্ষার্থে ১৩ রাউন্ড গুলি করেছে। সুলেমান ও আসকর আন্তজেলা ডাকাত দলের সদস্য। তাঁদের বিরুদ্ধে মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন থানায় ডাকাতির অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা জুড়ীর সোনারুপা চা-বাগানের ব্যবস্থাপকের বাংলোতে ডাকাতির প্রস্তুতি নেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। তাঁদের মৌলভীবাজার আদালতে পাঠানো হবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু ইউছুফ বলেন, গ্রেপ্তার হওয়া আসকর কুলাউড়া থানার একটি ডাকাতির মামলায় জেল খেটে এক সপ্তাহ আগে জামিনে ছাড়া পান।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..