• E-paper
  • English Version
  • সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০২:১২ পূর্বাহ্ন

Uncategorized, অধুনা, অনলাইন জগৎ, অপরাধ, অপরাধ, অর্থনীতি, অ্যাথলেটিক্স, আইন ও বিচার, আনন্দ, আন্তর্জাতিক, আফ্রিকা, আমার ডাক্তার, আমেরিকা, আরব বিশ্ব, ইউরোপ, এক্সক্লুসিভ, এশিয়া, কক্সবাজার, কম্পিউটার ও আইটি, কিশোরগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, কুমিল্লা, কুমিল্লা বিভাগ, কুষ্টিয়া, ক্রিকেট, খাগড়াছড়ি, খাবারদাবার, খুলনা, খুলনা বিভাগ, খেলা, গাইবান্ধা, গাজীপুর, গৃহসজ্জা, গোপালগঞ্জ, চট্টগ্রাম, চট্টগ্রাম বিভাগ, চাঁদপুর, চাঁপাই নবাবগঞ্জ, চুয়াডাঙ্গা, ছুটির দিনে, জনসংখ্যা, জয়পুরহাট, জামালপুর, জীবনযাপন, জেলার খবর, ঝালকাঠি, ঝিনাইদহ, টাঙ্গাইল, টেনিস, টেলিভিশন, ঠাকুরগাঁও, ঢাকা, ঢাকা বিভাগ, ঢালিউড, দিনাজপুর, দুর্ঘটনা, ধর্ম, নওগাঁ, নকশা, নড়াইল, নরসিংদী, নাটোর, নারায়ণগঞ্জ, নারীমঞ্চ, নীলফামারী, নেত্রকোনা, নোয়াখালী, পঞ্চগড়, পটুয়াখালী, পরামর্শ, পরিবেশ, পাকিস্তান, পাবনা, পিরোজপুর, পেশা, পোশাক শিল্প, প্রবাসে বাংলাদেশ, ফরিদপুর, ফিচার, ফুটবল, ফেনী, ফ্যাশন, বগুড়া, বরগুনা, বরিশাল, বরিশাল বিভাগ, বলিউড, বাংলাদেশ, বাগেরহাট, বাজেট, বাণিজ্য সংবাদ, বান্দরবান, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি, বিদেশের খবর, বিনোদন, বিবিধ, বিশ্লেষণ, বেড়ানো, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ভারত, ভোলা, মঞ্চ, ময়মনসিংহ, মাগুরা, মাদারীপুর, মানবসম্পদ, মানিকগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, মেহেরপুর, মোবাইল, মৌলভীবাজার, ময়মনসিংহ বিভাগ, যশোর, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, রংপুর, রংপুর বিভাগ, রাঙ্গামাটি, রাজধানী, রাজনীতি, রাজবাড়ী, রাজশাহী, রাজশাহী বিভাগ, রাশিফল, রূপচর্চা, লক্ষ্মীপুর, লালমনিরহাট, লিড নিউজ, শরীয়তপুর, শিক্ষাঙ্গন, শিল্প ও সাহিত্য, শেয়ারবাজার, শেরপুর, সংগীত, সংসদ, সম্পাদকীয়, সরকার, সাতক্ষিরা, সারাদেশ, সিরাজগঞ্জ, সিলেট, সিলেট বিভাগ, সুনামগঞ্জ, স্টাইল, স্বপ্ন নিয়ে, স্বাস্থ্য, স্লাইডার, হবিগঞ্জ, হলিউড

বিসিএসের বই পড়াই সব নয়

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৯ জুলাই, ২০১৮
  • ৪২৯ বার পঠিত

ছোটবেলা থেকে ক্যাডার সার্ভিসের প্রতি বাবার আগ্রহ ও উৎসাহের কথা শুনে বড় হয়েছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পা রেখে যখন এ সম্পর্কে আরও জানলাম, তখন আমার ভেতরেও বিসিএস, বিশেষ করে পররাষ্ট্র ক্যাডার হওয়ার প্রতি একধরনের আকর্ষণ কাজ করতে শুরু করল। যদিও মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের ছাত্র হিসেবে তখনো এই আত্মবিশ্বাস পাইনি যে আমার দ্বারা বিসিএস সম্ভব। কারণ সবাই বলত, একাডেমিক রেজাল্ট ভালো করলেই বিসিএসে ভালো করা যায় না।

গাজীপুর কাওরাইদ কেএন উচ্চবিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক আর ঢাকার বিএএফ শাহীন কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক—দুটো পরীক্ষাতেই জিপিএ ৫ পেয়েছি। স্নাতক ও স্নাতকোত্তরে মাইক্রোবায়োলজিতে আমার সিজিপিএ ছিল সর্বোচ্চ। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভালো ফলের জন্য প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক পেয়েছি, ডিন’স অ্যাওয়ার্ড পেয়েছি। তবু আর সবার মতো বিসিএস নিয়ে দ্বিধা কাজ করেছে আমার মধ্যেও। ভেবেছি, আমি কি পারব?

স্বপ্ন হলো সত্যি
৩৭তম বিসিএসের বিজ্ঞাপন দেওয়ার পর বন্ধুদের দেখাদেখি আমিও আবেদন করলাম। উদ্দেশ্য ছিল, প্রিলিমিনারি পরীক্ষা দিয়ে আদতে নিজেকে পরীক্ষা করা। স্নাতকোত্তরের থিসিস যখন জমা দিয়ে দিলাম, প্রিলির আর দুই মাস বাকি। ভাবলাম, সময় নষ্ট না করে জোর প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করি।

প্রিলিতে উত্তীর্ণ হওয়াটাই বোধ হয় আমার জন্য টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে কাজ করেছে। নইলে হয়তো ধরেই নিতাম, বিসিএস আমাকে দিয়ে হবে না। যাহোক, আত্মবিশ্বাস পুঁজি করে নতুন উৎসাহে লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি নিলাম। পরীক্ষা ভালোই হলো। ভাইবা ভালো হওয়ার পর, ভালো ক্যাডার পাব সেই প্রত্যাশা জন্মেছিল। কিন্তু পররাষ্ট্রে প্রথম হয়ে যাব, সত্যি বলতে এতটাও আশা করিনি! এটাই আমার প্রথম বিসিএস, তার ওপর কোথাও কোচিং করিনি। অন্যদের সঙ্গে আমার প্রস্তুতি ও সামর্থ্যের পার্থক্য কতটুকু, সে সম্পর্কে কোনো ধারণাই ছিল না। তবু আল্লাহর রহমতে প্রথম হয়েছি।

এখন মা-বাবা-স্বজনেরা খুব খুশি। আমার ওপর সবার আস্থা দেখে সত্যিই অবাক হয়েছি। সবাই নাকি আগেই জানত, আমার পররাষ্ট্র ক্যাডারে হবে। বন্ধুবান্ধবেরা অভিনন্দন জানাচ্ছে, অনেকে আবার ‘ট্রিট’ চাইছে। এ এক মধুর যন্ত্রণা!

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..